আমের মুকুল আসার পর করনীয়

কৃষি শিক্ষা

আম হল আমাদের ফলের রাজা, আম খেতে আমরা সকলেই পছন্দ করি, আমাদের সকলের পছন্দের একটি খাদ্য। যেটি আমরা সকলেই পছন্দ করে থাকি, এবং আম আমাদের শরীরে অনেক রকম প্রোটিন যোগায়। এবং আমাদের পছন্দের আমের বাগানের আমের মুকুল আসার পর কি কি করনীয় সে বিষয়গুলো জেনে থাকা অত্যন্ত দরকার।

image

আমের মুকুল যদি না টিকে তাহলে আমরা আমের উচ্চফলন পাবো না, আর ভালোভাবে যদি পরিচর্যা করতে পারি তাহলে আমরা সেই ফলনটি পাব বলে আশা করা যায়। তো আসুন আমরা আমের মুকুল আসার পর করণীয় কি এবং বিস্তারিত আলোচনা জেনে নিই।

সূচিপত্র: আমের মুকুল আসার পর করনীয়

আমের মুকুল আসার পর করনীয়

আমের গাছে যখন অধিক পরিমাণে মুকুল আসে তখন আমাদের অনেক ভালো লাগে, কিন্তু মুকুল গুলো যখন নষ্ট হয়ে যায় তখন আমাদের অনেক খারাপ লাগে, তো আসুন আমরা মুকুল আসার পর কি কি পরিচর্যা করলে উচ্চফলন পেতে পারি এ বিষয়ে আমরা জানব তার আগে আমরা জেনে নিই কি কি কারণে মুকুলগুলো নষ্ট হয়ে যায়। মুকুল ঝরে যাওয়া এবং নষ্ট হওয়ার যেটা মূল কারণ সেটা হলো যে ছত রোগের আক্রমণ।

আরো পড়ুন: মরিচ চাষের পদ্ধতি

কারণ বছরের এই সময়টাতে আম গাছের মুকুল আসার সময় ওয়েদার টা ঠান্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়া থাকে, আর রাতের বেলা পুরো মুকুল শিশিরে ভিজে যায়, পাউডারী মিলদিউ নামের ছত রোগের আক্রমণ বাড়তে থাকে। পরে ছাই রঙের বা ধূসর রঙের কালো হয়ে মুকুলের গুটিগুলো অথবা মুকুলগুলো ঝরে ঝরে পড়ে নষ্ট হয়ে যায়।

আম গাছের মুকুল নষ্ট হওয়ার দ্বিতীয় কারণ পোকামাকড়ের আক্রমণ, এমনিতেই আম গাছে তেমন পোকামাকড়ের আক্রমণ হয় না কিন্তু পরিচর্যার অভাবে কিছু গাছে অনেক পোকা হয়ে থাকে, যেমন কিছু আম গাছের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় কিছু পোকা দেখবেন গাছের পাতায় চড়বড় চড়বড় করে লাফালাফি করছে ।

এ পোকা গুলো খুব মারাত্মক আর এই পোকাগুলা হলো হপার পোকা এই পোকা করে কি কচি পাতা বা কচি মুকুল যখন ছাড়ে তখন এরা কচি মুকুলের গোড়ার রসগুলো চুষে খায় ফলে ওই মুকুল গুলো রস না পাওয়ার কারণে সবগুলো ঝরে ঝরে পড়ে যায়। আম গাছে মুকুল নষ্ট হওয়ার আরেকটি কারণ হলো গাছের পানির অভাব, গাছে ঠিকভাবে পানি না পেলে মুকুলগুলো রস না পাওয়ার কারণে নষ্ট হয়ে যায় অথবা গাছে মুকুল কম আসে অথবা আসে না এদিকে আমাদের অবশ্যই নজর রাখতে হবে।

আরো পড়ুন: আনারসের চাষ পদ্ধতি

মুকুল আসার আগ থেকে আমাদের গাছে ঠিকভাবে পানি দিতে হবে আবার এই দিকে নজর রাখতে হবে অতিরিক্ত পানি দিলে গাছের ক্ষতি হতে পারে পরিমাণ মতো পানি দেওয়া উচিত। এ সময় আমাদের মোট তিনবার স্প্রে করতে হবে।

আমের মুকুল - পোকা-মাকড় দমন

আমাদের প্রথম কাজ হবে প্রথমে যখন মুকুল আসে চেষ্টা করব ১০ থেকে ১৫ দিন প্রতিদিন সকালে মুকুল গুলো স্প্রে করে ধুয়ে দেওয়ার ছত রোগের আক্রমণ থেকে বাঁকা যাবে।

১. প্রথমে আমাদের স্প্রে করতে হবে যখন মুকুল আসবো ভাব কিংবা মুকুলের লক্ষণ দেখা গেছে তখন আমাদের ছত্রাক নাশক এই স্প্রেটা করলে উচ্চ ফলন পাওয়া যায়। প্রতি লিটারে আড়াই গ্রাম করে কার্বন-ডিজম অথবা ম্যানসার ব্যবহার করা যায়।

ফুল ফুটে যাওয়া অবস্থায় কীটনাশক দিলে পরাগ সংযোগকারী উপকারী কীটপতঙ্গ মারা যাবে তাতে ফল কম দাঁড়াবে

২. সম্পূর্ণ ফুলে গুটি আসার পর প্রতি লিটারে ২ml ফ্লোরা ব্যবহার করতে পারে, এতে করে গুটিগুলো ঝরে পড়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায় আবার পরাগায়নেও সহায়তা করে

আরো পড়ুন: সার কি-মাটি পরীক্ষা করার নিয়ম

৩. আমের মাছি পোকা: এ পোকার কিরা পাকা আমের মধ্যে প্রবেশ করে শ্বাস খেতে থাকে। এতে আম পচে যায় এবং ঝরে পড়ে। আক্রান্ত আম কাটলে শ্বাসের মধ্যে সাদা রঙের কীড়া কিলবিল করতে দেখা যায়। এজন্য ফল পাকার আগে ডিপটেরক্স ৮০ এসপি পানির সাথে মিশিয়ে গাছে ভালোভাবে ছিটিয়ে দিতে হবে। 

ফল সংগ্রহ ও ফলন

ফল ধরার ৩-৪ মাসের মধ্যে ফল পরিপক্ব হয়, যা প্রতিটি যাতে আকার ও রং দেখেই বোঝা যায়। তবে সাধারণত পরিণত ফলের রং হালকা সবুজ হলুদাভ সবুজ হয়। আমের ফলন নির্ভর করে গাছের আকার এবং বয়সের উপর। গাছ প্রতি ৫০০-৩০০ টি আম পাওয়া সম্ভব।

আম পাকানোর নিয়ম

শুষ্ক ও খোলামেলা ঘরের মেঝেতে খড় বিছিয়ে তার উপর ২-৩ স্তরে আম রেখে দিলে ৪-৫ দিনেই পেকে যায়।

আরো পড়ুন: আলু চাষ পদ্ধতি

আম বাগানে সাথী ফসল চাষ

আম গাছ পরিপূর্ণরূপে বেড়ে উঠতে এবং বীজের চারার ফলন দিতে প্রায় ৭-৮ সময় লাগে। এসময় মধ্যবর্তী জমি পতিত অবস্থায় থাকে। ফলে যেখানে আগাছা জন্মে, যা মাটির উর্বরতা হ্রাস করে। আর আম গাছ লাগানোর পর ফলন পেতে দেরি হয়। ফলে কৃষক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়।

কাজেই মাটির উর্বরতা রক্ষার্থে এবং কৃষকের আর্থিক চাহিদা মেটাতে আন্তঃফলন চাষ একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। আমের জমিতে বেগুন, টমেটো, ঢেঁড়স, পেঁপে, তরমুজ, ও অন্যান্য স্বল্প মেয়াদী ফসলের চাষ করা যায়।

উপসংহার

আমের মুকুল আসার পর করণীয় বিস্তারিতভাবে আমরা জানলাম। এখন সেই অনুযায়ী আমরা যদি কীটনাশক ব্যবহার করি এবং সঠিকভাবে পরিচর্যা করি তাহলে আমাদের উচ্চ ফলন পাব বলে আশা করা যাই।

ধন্যবাদ-Thanks

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

আর আইটি ফার্মের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url