মাথা ব্যাথা কোন রোগের লক্ষণ

রোগ ও সমস্যা

প্রায় সকলের মাথা ব্যথা সাথে পরিচিত। এই মাথা ব্যথা সমস্যার জন্য আমাদের অনেক ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হয়। সেইজন্য মাথা ব্যথা কি? মাথা ব্যথা কোন রোগের লক্ষণ, মাথা ব্যথার চিকিৎসা, ঔষধ সহ সমস্ত কিছু উপস্থাপন করা হয়েছে এই কনটেন্টে এর মাঝে।

image

পেজ সূচিপত্র: মাথা ব্যাথা কোন রোগের লক্ষণ - মাথা ব্যাথা হলে করণীয়

মাথাব্যথা কি? What is a headache?

মাথা ব্যথা (matha betha) আমাদের অতি পরিচিত। মাথা ব্যথা রোগ নয়, রোগের উপসর্গ মাত্রা। এই ব্যথার অভিজ্ঞতা আমাদের প্রায় সবারই আছে। এই ব্যথা বড় বিচিত্র। হঠাৎ ক্ষণিকের জন্য বা আস্তে আস্তে অনেক দিনের জন্যও হতে পারে।

কখনও সহ্য করার মত,আবার কখনও অসহ্য ব্যথা অনুভূত হতে পারে। বিরতি দিয়ে দিয়ে বা বিরামহীন ব্যথাও হতে পারে। ব্যথাটা হালকা হালকা,শূন্য বা চাপ দেয়া ব্যাথা হতে পারে।

আরো পড়ুন: চোখ ওঠার ড্রপ - চোখ উঠলে করণীয় কি

এ ব্যথা কখনও স্পন্দিত আবার কখনও তীক্ষ্ণ গভীর ভেদকারীও হতে পারে। পাহাড়ের চূড়াতে বা সাগরের গভীরে গেলেও এ ব্যথা হতে পারে।

মাথা ব্যাথা কোন রোগের লক্ষণ - মাথা ব্যাথার কারণ

মাথা ব্যথার নানাবিধ কারণ রয়েছে। তার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কিছু এখানে উল্লেখিত করা হলো। ক্ষুধার জ্বালা বা মনের জ্বালাতেও মাথা ব্যথা, মুক্ত বায়ুর অভাবে বা ঝড়ো হাওয়াতে আসন্ন বজ্রপাতেও মাথা ব্যথা হয়।

মানসিক দুশ্চিন্তা অস্থিরতা এবং ঘুম না হওয়ার জন্য সাধারণত মাথার চাঁদিতে চাপ দেয়া ব্যথা হয়। আধ- কপালে মাথা ব্যথা একধারে ব্যথা হয়।

মাথার আঘাত মাথা ব্যথার একটা বড় কারণ। সামান্য আঘাত, যেমন একটা চড়ও মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। ঘাড়ের শীরদাঁড়াতে, রগে বা মাংসের অসুখে বা আঘাতের জন্যও মাথা ব্যথা হয়। এছাড়াও আরো যে কারণ-গুলোনে মাথা ব্যথা হয় সেগুলো হলো:

  • নাকের অসুখ
  • কানের অসুখ
  • চোখের অসুখ
  • রক্তচাপ
  • প্রসাদের রোগ

আরো পড়ুন: রক্তশূন্যতার লক্ষণ সমূহ - রক্তশূন্যতা দূর করার ঘরোয়া উপায়

image
সাইনুসাইটিস - Sinusitis

  1. নাকের অসুখ যেমন : সাইনাসের প্রদাহ (সাইনুসাইটিস - Sinusitis) হলে এ ব্যথা সাধারণত ভ্রুর উপরে এবং নাকের দুই ধারে হয়।
  2. কানের অসুখ যেমন : কানপাকা,কানের পিছনের হাড়ে প্রদাহে (মাস্টয়েডাইটিস-Mastoiditis) সাধারণত কানের মধ্যে এবং পেছনে এ ব্যথা হয়।
  3. চোখের অসুখ যেমন: চোখ ওঠা, আইরাইটিস (আইরিশে প্রদাহ) বা ' গ্লুকোমাত (চোখের মধ্যে চাপ বেড়ে যাওয়া) সাধারণত চোখে এবং কপালে ব্যথা হয়। এ ছাড়া দাঁতের বিভিন্ন অসুখে দাঁত ব্যথার সাথে সাথে এ ব্যথা থাকতে পারে। 
  4. রক্তচাপ (ব্লাড প্রেসার): বৃদ্ধিতে সাধারণত ঘাড়ের পেছনে  স্পন্দিত ব্যথা হয়। রক্তচাপ স্বাভাবিকের চেয়ে কমে গেলেও মাথা ব্যথা হয়। মাথার ঝিল্লির প্রদাহ (মেনিনজাইটিস)- এ এটা একটা অতি সাধারণ লক্ষণ। ঘাড়ে বা মাথার মধ্যে টিউমার হলেও এ ব্যথা হয়। এ ছাড়া, মাথার মধ্যে রক্তের গোটা (হেমাটমা) তৈরি হলে মাথা ব্যথা হয় এবং এ ব্যথা হঠাৎ মাথা নাড়ালে ক্ষণিকের জন্য বেড়ে যায়। ফিটের অসুখের এটা একটা সাধারণ লক্ষণ।
    1. গন্ধযুক্ত বাতাস,কল-কারখানার বিষাক্ত ধোঁয়া বা গ্যাসেও এই ব্যথা হয়। যেকোনো ওষুধ ও খাদ্যের পার্শ্বক্রিয়াতে মাথা ব্যথা হতে পারে।
  5. প্রসাদের রোগ যেমন : নেফ্ররাইটিস এবং ডায়েবেটিস বা বহুমূত্র রোগেও মাথা ব্যথা হয়। বাতজ্বর, রক্তশূন্যতা, পেটের আলসার এবং মহিলাদের মাসিকের বিভিন্ন অসুখেও এ ব্যথা হয়।

মাথা ব্যথার ওষুধের নাম - মাথা ব্যাথা হলে করণীয় / চিকিৎসা

(১) মাথা ব্যথার আসল কারণ বের করে তা দূর করতে পারলে এ ব্যথা ভালো হয়ে যাবে।

(২) একঘেঁয়েমি থেকে অব্যাহতি পাওয়ার কারণ খুঁজতে হবে। প্যারাসিটামল বা  এসপিরিন ট্যাবলেট ১টা থেকে ২টা করে দিনে ৩-৪ বার খাবার পরে খেলে যথেষ্ট উপশম হয়।

(৩) প্রায় মাথা ব্যথা হলে কারণ বের করে চিকিৎসকের পরামর্শ-মত প্রয়োজনে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে (BP Measurment,X-Ray, CT, MRI, EEG, CSF Study, Bloodiest ইত্যাদি) রোগ অনুযায়ী চিকিৎসা নেয়া উচিত।

এক নজরে অনেক কিছু 👉 এখানে ক্লিক করুন

শেষ কথা

আলহামদুলিল্লাহ, আপনারা মাথা ব্যথা কোন রোগের লক্ষণ বের করতে পারবেন এবং মাথা ব্যথার জন্য কি ওষুধ খাবে, চিকিৎসা নেওয়ার জন্য কি কি প্রয়োজন সেগুলো বলে দেওয়া হয়েছে। আপনারা যারা মাথা ব্যথার জনিত সমস্যায় ভুগছেন তারা দ্রুত চিকিৎসা গ্রহণ করেন, এবং অন্যকে সাহায্য করতে শেয়ার করুন।

ধন্যবাদ-Thanks

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

আর আইটি ফার্মের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url