দৌড়ানোর উপকারিতা

রোগ ও সমস্যা

দৌড়ানোর বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা রয়েছে হয়তো অনেকেই হয়তো জানে না। এই কনটেন্টটিতে দৌড়ানোর উপকারিতা এবং শূন্য থেকে শুরু করে দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন এইরকম বিশেষ কৌশল উপস্থাপন করা হয়েছে।

image

সূচিপত্র: দৌড়ানোর উপকারিতা

মেয়েদের লাইফ স্টাইল 👉 এখানে ক্লিক করুন

দৌড়ানোর উপকারিতা - Benefits of running

সুস্থ থাকতে ব্যায়ামের কোন বিকল্প নেই। আমরা বিভিন্ন ব্যায়াম করে থাকি যেমন: দৌড়, সাঁতার, পুশআপ, বাইসে-প, কার্লোস, পেশী-টান, ফ্লেক্সিবিলিটি/স্ট্রেচিং, ফাংশনাল প্রশিক্ষণ ইত্যাদি।

অনেকগুলো ব্যায়ামের মধ্যে আমাদের কাছে পরিচিত একটি ব্যায়াম দৌড়। এই দৌড়ানোর উপকারিতা রয়েছে অনেকগুলো যেমন: 

  • ওজন হ্রাস করে,
  • মস্তিষ্কের সহায়তা করে,
  • প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ে,
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে,
  • রাত্রে ঘুম ভালো হয়,
  • হৃদয় সুস্থ রাখে,
  • স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি,
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রিত করে, ইত্যাদি।

সুস্থতা আমাদের জন্য একটি বড় নেয়ামত, আমরা অনেকেই সুস্থতার কদর করতে জানি না, যখন অসুস্থ হয় তখন সুস্থতার গুরুত্ব উপলব্ধি করি। এবং অসুস্থ হলে আমাদের মনে অনেকগুলো প্রশ্ন এটা কেন হল, ওটা কেন হলো কেন এটা করলাম ইত্যাদি।

আরো পড়ুন: ব্রণের জন্য কোন ফেসওয়াস ভালো (কেন আমাদের ব্রণ হয় )

উপরে অনেকগুলো দৌড়ানোর উপকারিতা উপস্থাপন করা হয়েছে। এ থেকে আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন দৌড়ানোর উপকারিতা সম্পর্কে। এবং আপনারা হয়তো ভাবছেন এতগুলো দৌড়ানোর উপকারিতা😲 আমাদের সুস্থ থাকা খুবই জরুরী সেজন্য আসুন আমাদের সুবিধার্থে সকালে অথবা বিকালে নিয়মিত দৌড়ানোর চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ।

দৌড়ানোর নিয়ম - Rules of running

আলহামদুলিল্লাহ, আমরা দৌড়ানোর উপকারিতা সম্পর্কে অবগত আছি। আমাদের মাঝে অনেকেই দৌড়ানো শুরু করার দু একদিন পর দৌড়ানো বন্ধ করে দেয়। কারণ সে দৌড়ানোর সঠিক নিয়মে শুরু করেনি। দৌড়াতে গিয়ে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে এক পর্যায়ে সে দৌড়ানো বন্ধ করে দিয়েছে।

প্রাথমিক পর্যায়ে দৌড় শুরু করার নিয়ম;

  • দৌড় শুরু করার আগে ৫-৭ মিনিট হাটাহাটি করে নিন।
  • প্রথম দিন যতটুকু দৌড়াতে পারবেন সেই পরিমাণ ৭ দিন দৌড়াবেন।
  • ৭ দিন পর ১০% দৌড় বৃদ্ধি করবেন যেমন (১-৭দিন ১০০০ মিটার, ৭ দিন পর ১১০০ মিটার) এভাবে বৃদ্ধি করুন।
  • খাবার গ্রহণের প্রয়োজনে দৌড়ানোর প্রায় দুই ঘণ্টা আগে খাবার গ্রহণ করবেন।
  • দৌড়ানোর সময় নাক দিয়ে নিশ্বাস নিবেন এবং মুখ দিয়ে নিঃশ্বাস ছাড়বেন।
  • যখন অতিরিক্ত হাঁপানি আসবে একটু থেমে যান এবং নাক দিয়ে বেশি করে নিশ্বাস নিয়ে ৩-৪ সেকেন্ড ধরে রাখুন এরপর মুখ দিয়ে নিঃশ্বাস ছেড়ে দিন।***
  • দৌড়ানোর সময় পায়ের সামনের দিক আগে পড়বে এতে পায়ে ফ্যাকচারের আশঙ্কা থাকে না।
  • এবং দৌড়ানোর সময় স্বাভাবিক ধাপ ফেলুন ধাপগুলো যেন বডির অতিরিক্ত সামনের দিকে চলে না যায়।
  • হাত গুলো স্বাভাবিক রাখুন

ছেলেদের লাইফ স্টাইল 👉 এখানে ক্লিক করুন

*** আমরা যখন হাঁপিয়ে যাই তখন খুব দ্রুত নিঃশ্বাস গ্রহণ করি, আবার ছেড়ে দেই এতে করে আমরা পর্যাপ্ত পরিমাণ অক্সিজেন পাই না। সেজন্য কিছুক্ষণ ৩-৪ সেকেন্ড নিঃশ্বাস ধরে রাখলে আমরা পর্যাপ্ত পরিমান অক্সিজেন ধারণ করতে পারি।  তখন আস্তে আস্তে হাঁপানি টা কমে যায়।***

iamge
দৌড়ানোর সঠিক নিয়ম

আপনি যদি এই নিয়মগুলো মেনে দৌড় শুরু করেন ইনশাআল্লাহ আপনি সফল হবেন। এমনকি আপনি যদি দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে চান তাহলেও আপনার দৌড় প্রতিযোগিতায় এই নিয়মগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

শেষ কথা

আলহামদুলিল্লাহ, দৌড়ানোর উপকারিতা সম্পর্কে আমরা জেনেছি। ব্যায়াম করলে এবং ব্যায়াম না করলে নিজেই শারীরিক ফিটনেস উপলব্ধি করা যায়। শারীরিক এবং মানসিক দিক দিয়ে নিজেকে এগিয়ে রাখতে প্রতিদিন দৌড়ানোর চেষ্টা করুন।

ধন্যবাদ-Thanks

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

আর আইটি ফার্মের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url