ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং কি

ডিজিটাল মার্কেটিং

ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং কি ? ফ্রিল্যান্সিং হলো নিজেকে স্বাধীনভাবে কাজ করার একটি উপায় যেখানে আপনি নিজের সময়কে পরিচালনা করতে পারেন। মার্কেটিং সম্পর্কে জ্ঞান হলে আপনি কোনও পণ্য বা পরিষেবার বিপণন ও বিক্রয়। চলুন তাহলে আলোচনা করা যায় ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং কি ?

image

পেজ সূচিপত্রঃ ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং কি

ফ্রিল্যান্সিং v/s মার্কেটিং

ফ্রিল্যান্সিং:

  • ফ্রিল্যান্সিং হলো নিয়োগকারী ব্যক্তি স্বনিয়মিত কাজে নিয়োগ পাওয়া একটি মডেল, যেখানে ব্যক্তিগত ক্লায়েন্টদের কাছে সেবা প্রদান করে সাপেক্ষে টাস্ক সম্পাদন করা হয়।
  • এটি অনলাইন বা অফলাইন উভয় সময়ে পরিচালিত হতে পারে। ফ্রিল্যান্সিং এ কাজের সময়, মূল্য এবং সেবার বিবরণ পরিষ্কার ভাবে বিনিয়োগ করা হয়।
  • নিজেকে স্বাধীনভাবে কাজ করার একটি উপায় যেখানে আপনি নিজের সময়কে পরিচালনা করতে পারেন এবং স্বতন্ত্রভাবে নিজের কাজ করতে পারেন।
  • ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনি আউটসোর্সিং সাইটে যোগ দিতে পারেন এবং নিজের কাজের জন্য একটি নিজস্ব কার্যালয় স্থাপন করতে পারেন।

মার্কেটিং:

  • মার্কেটিং হলো পণ্য বা সেবা বিক্রয় বা বিপণনের জন্য পরিকল্পনা, পরিচালনা এবং কর্মকান্ডগুলির সমষ্টি। এটি আপনার কাস্টমারদের জন্য বিপণন করে উপস্থাপন করে যেখানে পণ্য বা সেবার মান।
  • মার্কেটিং একটি বিশদ ক্ষেত্র, যা উপযুক্ত পাবলিক এবং লক্ষ্যমূলক কার্যক্রম অনুষ্ঠান করে কোনও পণ্য বা পরিষেবার মাধ্যমে আর্থিক লাভ করে থাকে।
  • মার্কেটিং সম্পর্কে জ্ঞান হলে আপনি কোনও পণ্য বা পরিষেবার বিপণন ও বিক্রয়ে অভিজ্ঞ হতে পারেন। এছাড়াও আপনি কোনও ব্যবসায়ের মার্কেটিং করতে পারেন এবং উচ্চ লাভ করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং এবং মার্কেটিং এ কাজের সুবিধা

ফ্রিল্যান্সিং এবং মার্কেটিং এর মধ্যে একটি পার্থক্য হলো ফ্রিল্যান্সিং আপনাকে নিজের কাজ করতে দেয়, যখন মার্কেটিং আপনাকে কাজ করতে দেয়। একটি ফ্রিল্যান্সিং কর্মী নিজের সময়কে নিয়ন্ত্রণ করে এবং প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে একটি প্রকল্পে বিভিন্ন ধরণের কাজ করে ক্ষমতা প্রদর্শন করতে পারে।

অন্যদিকে মার্কেটিং একটি প্রতিষ্ঠানের অন্তর্নিহিত বিষয়, যা উচ্চমাত্রা কাজের মাধ্যমে ক্ষমতা প্রদর্শন করতে হয়। মার্কেটিং প্রকল্পগুলি সাধারণত প্রতিষ্ঠানের আইডিয়া, মার্কেট রিসার্চ এবং পণ্য বা পরিষেবার উন্নয়ন সহ বিভিন্ন উপাদান থাকতে পারে।

আপনি যদি একটি কর্মী হন তবে ফ্রিল্যান্সিং আপনার জন্য উচিত হতে পারে যদি আপনি নিজের সময় ও স্বাধীনতা ব্যবহার করতে পছন্দ করেন।

ফ্রিল্যান্সিং এবং মার্কেটিং কিছু অতিরিক্ত তথ্য

ফ্রিল্যান্সিং এবং মার্কেটিং দুটি আলাদা কাজের ধরণ, তবে এদের মধ্যে সম্পর্ক ও সমন্বয় থাকতে পারে। এই দুটি কাজের সংক্রান্ত কিছু পার্থক্য নিচে দেওয়া হল:

ফ্রিল্যান্সিং:

  1. ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনার নিজস্ব ক্লায়েন্টদের সন্ধান করতে হবে। এটি আউটসোর্সিং সাইটে প্রোফাইল তৈরি করে বা সামাজিক মাধ্যম, ব্লগ, ওয়েবসাইট এবং অন্যান্য প্রচার মাধ্যম ব্যবহার করে করা যেতে পারে।
  2. আপনার কাজ এবং দক্ষতা ভিত্তিক প্রমাণ সরবরাহ করতে পারেন, যেগুলি আপনার ক্লায়েন্টদের বিশ্বাস জিততে সাহায্য করবে।
  3. ব্যক্তিগত ব্র্যান্ডিং এবং স্থায়িত্ব গড়ে তোলার জন্য আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন এবং আপনার আলোচিত কাজের নমুনা সংগ্রহ করতে পারেন।

মার্কেটিং:

আরো পড়ুন: সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি?

  1. মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে আপনার লক্ষ্যমূলক পাবলিক স্থানগুলি আপনার ক্লায়েন্টদের সন্ধান করতে হবে। এটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সাথে একটি মিশ্রণ হতে পারে
  2. লক্ষ্যমূলক নীতি: একটি মার্কেটিং ক্যাম্পেইন চালানোর আগে নির্দিষ্ট লক্ষ্য সেট করুন। এটি আপনাকে পরিচিত করবে যে আপনি কি লক্ষ্য অর্জন করতে চান এবং কেমন পরিমাণ সাফল্য প্রাপ্ত করতে চান।
  3. লক্ষ্যমূলক নিচ: আপনার পণ্য বা পরিষেবা দ্বারা নিশ্চিত করুন যে আপনি একটি নিশ্চিত লক্ষ্যমূলক নিচে কাজ করছেন। এটি আপনার মার্কেটিং প্রচেষ্টার দিকে সম্ভাব্য গ্রাহকদের সুপারিশ করবে এবং একটি নির্দিষ্ট পাবলিক সম্প্রদায়ে আপনাকে প্রশংসা করবে।
  4. টার্গেট অডিয়েন্স: আপনার পণ্য বা পরিষেবার জন্য নির্দিষ্ট একটি টার্গেট অডিয়েন্স সেট করুন। এটি আপনার মার্কেটিং প্রচেষ্টার দিকে সামর্থ্য দেবে সঠিক মার্কেটিং চ্যানেলে গ্রাহকদের সন্ধান করতে।

নতুন ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য বেসিক থেকে

একজন নতুন ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য বেসিক থেকে উচ্চ লেভেলে পর্যন্ত পরামর্শ দেওয়া হলো:

১. পেশাদার গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র নির্ধারণ করুন: প্রথমেই, নিজের নিজের ক্ষমতা এবং আগ্রহের উপর ভিত্তি করে যে কোনও পেশাদার ক্ষেত্র নির্ধারণ করুন। যেমন, আপনি লেখক হতে পারেন, ওয়েব ডেভেলপার, গ্রাফিক্স ডিজাইনার, ডিজিটাল মার্কেটার ইত্যাদি। একটি পেশার নিশ্চিত করতে আপনার আগ্রহ এবং কৌশল উপর ভিত্তি করুন।

২. কৌশল বিকাশে মেন্টর খুঁজুন: একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার হওয়ার পর থেকে পেশাদার কৌশল বিকাশে মেন্টরের সহায়তা সম্প্রদায় খুঁজে নিন। মেন্টর আপনাকে পরামর্শ দিতে পারেন এবং আপনাকে নির্দেশ করতে পারেন যে কীভাবে পেশাদার হওয়া যায়। অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং সম্প্রদায়, সামূহিক মাধ্য।

৩. জ্ঞান এবং দক্ষতা উন্নতি: ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য আপনার দক্ষতা ও জ্ঞান উন্নতি করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যেকোনো ডিজিটাল মার্কেটিং কৌশল বা প্ল্যাটফর্মে স্পেশালাইজড হতে পারেন।

৪. আপনি অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স, টিউটোরিয়াল, এবং ব্লগ পড়ে নতুন কিছু শিখতে পারেন। আপনি যদি প্রাথমিক জ্ঞান প্রাপ্ত করার জন্য শুরু করতে চান, তবে একটি সাধারণ ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স এবং ইনফরমেটিভ ব্লগ পাঠানো কিছু ভাল ধারণা দেওয়া যেতে পারে।

আরো পড়ুন: ডিজিটাল মার্কেটিং কি? কিভাবে করতে হয়?

৫. পরিচিতি স্থাপন করুন: আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে চান তবে আপনাকে নিজেকে আপনার লক্ষ্যগুলির সাথে পরিচিত কর।

৬. নিজের দক্ষতা উপস্থাপন করুন: প্রথমে আপনাকে নিজের দক্ষতা উপস্থাপন করতে হবে। নিজের দক্ষতা সম্পর্কে প্রতিনিয়ত চিন্তা করুন এবং এটি উপযুক্ত প্ল্যাটফর্মে উপস্থাপন করতে হবে।

৭. প্রফেশনাল প্রোফাইল তৈরি করুন: ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনাকে একটি প্রফেশনাল প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। আপনার প্রোফাইল সঠিক এবং আকর্ষণীয় হলে আপনি আপনার ক্লায়েন্টদের আকর্ষণ করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য প্রয়োজনীয় ইনফরমেশন

ডিজিটাল মার্কেটিং জ্ঞান: ডিজিটাল মার্কেটিং একটি বিস্তৃত ক্ষেত্র, এবং তার নির্দিষ্ট কাজের জন্য প্রয়োজনীয় জ্ঞান থাকা উচিত। আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং কনসেপ্ট জানতে হবে, যেমন সামাজিক মাধ্যম মার্কেটিং, ইমেল মার্কেটিং, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO), পেইড অ্যাডভার্টাইজিং, ওয়েবসাইট অ্যানালিটিক্স ইত্যাদি।

সম্পর্কে জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম: সম্পর্কে জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম যেমন Upwork, Freelancer, Fiverr ইত্যাদি এর সম্পর্কে। এই সাইটগুলি কোনও একটি বা একাধিক ক্যাটাগরি সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে।

মার্কেটিং স্ট্রাটেজি ও পরিকল্পনা: আপনার একটি ব্যবসার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং ক্যাম্পেইন পরিচালনা করার জন্য পরিকল্পনা করা উচিত। আপনি আপনার লক্ষ্যগুলি ধারণা করতে পারেন এবং একটি বিস্তারিত পরিকল্পনা তৈরি করতে পারেন যা আপনার ক্যাম্পেইনের পরিবর্তনশীলতা, বাজেট ব্যয়, টার্গেট পাবলিক, সময়সীমা ইত্যাদি।

আরো পড়ুন: ডিজিটাল মার্কেটিং কত ধরনের

ডিজিটাল মার্কেটিং পরিচিতি: ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ করার জন্য আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং পরিচিতি থাকতে হবে। আপনাকে বিভিন্ন ডিজিটাল মার্কেটিং প্ল্যাটফর্ম এবং সর্বশেষ টেকনোলজি সম্পর্কে জানা উচিত।

বিভিন্ন ডিজিটাল মার্কেটিং কৌশল সম্পর্কে জানা: আপনার ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ করার জন্য আপনাকে বিভিন্ন ডিজিটাল মার্কেটিং কৌশল সম্পর্কে জানা উচিত।

শেষ কথা

ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং কি আশা করি উপরে আলোচনাটুকু পড়ে আপনি ফ্রিল্যান্সিং ডিজিটাল মার্কেটিং কি এই কনসেপ্ট টি ক্লিয়ার হয়ে গিয়েছে। ফ্রিল্যান্সিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং করে আপনিও মাসে লাখ টাকা উপার্জন করতে পারেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

আর আইটি ফার্মের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url